মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:০৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::

পাবনায় কুখ্যাত ছিনতাই চক্রের চারজন সহ বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও অর্থ উদ্ধার

ডিডিপি নিউজ ২৪ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২

 

 

স্টাফ রিপোর্টার।।
পাবনায় অস্ত্রসহ আলোচিত ছিনতাই চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পাবনা জেলা পুলিশ এবং ডিবি পুলিশের একটি চৌকস দল।

আজ মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে পাবনা জেলা পুলিশ ‍সুপার কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস কনভারেন্সের মাধ্যমে এমটি জানিয়েছেন পাবনা জেলা পুলিশ।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২২ সেপ্টেম্বর পাবনা সদর থানাধীন অনন্ত বাজার দক্ষিণ রাঘবপুর এলাকার আলহাজ্ব মো. আফতারের ছেলে মো. মনিরুল ইসলাম (৩৯) কে শহরের কালাচাঁদ পাড়া গলির ভিতরে আগ্নেয়াস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তার নিকট ব্যাংক থেকে উত্তোলনের ৩০০০০০/= (তিনলক্ষ) টাকা ছিনতাই করে পালিয়ে যান ডাকাতদল।

অপর একটি ঘটনা গত ১-লা অক্টোবর সদর থানার মালঞ্চী এলাকার এস এম সারোয়ার হোসেনের ছেলে এসএম সামস ইকবাল (৪৪) জনতা ব্যাংক আতাইকুলা শাখা থেকে ১৪,০০,০০০/-(চৌদ্দ লক্ষ) টাকা উত্তোলন করে নিজ বাড়ীতে আসার পথে জালালপুর হাইওয়ে রাস্তার উপর ডাকাত দলের সদস্যরা তাকে তিনটি গুলি করে তার কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নিতে চেষ্টা করেন। কিন্তু গুলির শব্দে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ডাকাত দলের সদস্যরা টাকা ছিনতাই না করে মোটরসাইকেল নিয়ে দ্রুত সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

গত ৪ অক্টোবর দুপুরে সদর থানাধীন উত্তরপাড়া ছোট মনোহরপুর, মালিগাছা এলাকার মো. সাইফুল ইসলামের স্ত্রী মোছা. মাহমুদা খাতুন (২৭) পাবনা শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, কালাচাদপাড়া শাখা হতে ৯,০০,০০০/-(নয় লক্ষ) টাকা উত্তোলন করে ব্যাটারী চালিত রিক্সা যোগে নিজ বাড়ীতে ফেরার পথে পাবনা সদর থানাধীন গাছপাড়া পৌঁছামাত্র একটি পালসার মোটরসাইকেল নিয়ে তিন জন ব্যক্তি উক্ত ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার গতিরোধ করে দাড়ায়। মোটরসাইকেলে থাকা তিনজন ব্যক্তি আগ্নেয়াস্ত্র দ্বারা প্রাণ নাশের ভয় দেখিয়ে মাহমুদা খাতুন এর নিকট থাকা নগদ ৯,০০,০০০/-(নয় লক্ষ) টাকাসহ একটি হ্যান্ড ব্যাগ বলপূর্বক ছিনিয়ে নেয়। এ সময় স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে ছিনতাইকারীরা এক রাউন্ড গুলি (ফাঁকা ফায়ার) করে টাকার ব্যাগসহ মোটরসাইকেল নিয়ে বাইপাস রোড হয়ে পাবনা বাস টার্মিনালের দিকে পালিয়ে যায়।

এভাবে পাবনা শহরে পরপর তিনটি দুর্ধর্ষ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা সংঘটিত হলে উক্ত ঘটনার পরিপেক্ষিতে পাবনা সদর থানায় একটি দস্যুতার মামলা রুজু হয়। যাহার মামলা নং-০৮ তারিখ-০৫/১০/২০২২ইং ধারা-৩৯২ পেনাল কোড ১৮৬০।

পাবনা পুলিশ সুপার জনাব মোঃ আকবর আলী মুনসী’র নির্দেশনা ও প্রত্যক্ষ তত্বাবধানে শহরের বিভিন্ন এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ ও পর্যালোচনা এবং আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে অতিঃ পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) জনাব মোঃ মাসুদ আলম এবং অতিঃ পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জনাব মোঃ রোকনুজ্জামান সরকার এর নেতৃত্বে এস আই (নিরস্ত্র) অসিত কুমার বসাক, এসআই (নিরস্ত্র) তানভীর রহমানসহ পাবনা ডিবির একটি চৌকশ টিম এবং ওসি পাবনা সদর থানা জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম এর নেতৃত্বে পাবনা সদর থানার একটি টিমের যৌথ অভিযানে পাবনা সদর থানাধীন বাংলা ক্লিনিকের গলিতে ছদ্মবেশে ভাড়া নেওয়া জনৈক দেলোয়ার এর বসত বাড়ীর নিচ তলায় ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল, পিস্তল, গুলি, মোবাইল, জামাকাপড়সহ ছিনতাইকারীদের মুল পরিকল্পনাকারীসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়।

প্রথমে সদর থানাধীন দক্ষিন মাছিমপুর এলকার মো. ইউসুফ আলীর ছেলে মাসুদ রানা (৩২) কে গ্রেফতার করা হয়। মাসুদ রানাকে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে ০৪ (চার) দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করা হলে তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানান, সে সহ আরো ৪/৫ জন এই ছিনতাই চক্রের সাথে জড়িত ছিল।

পরবর্তীতে মাসুদ রানার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মামলার ভিকটিমের নিকট হইতে ছিনতাই করে নেওয়া মোবাইল, ব্যাগ এবং ৩,৮৩,০০০/-(তিন লক্ষ তেরাশি হাজার) টাকা উদ্ধার করা হয়।

মাসুদ রানার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার অপরাপর সহযোগী গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর থানাধীন নালডিংগি রাগোবেন্দ্রপুর গুচ্ছগ্রাম এলাকার মোঃ ধুলা মিয়া ওরফে দুলা মিয়ার ছেলে আল আমিন (৩৬) কে ঢাকা সাভারের পূর্ব রাজাশন এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। ডাকাত দলের অন্যতম সদস্য মানিকগঞ্জ জেলার জয়রা রোড এলাকার মৃত আইযুব আলী খাঁ’র ছেলে মো. ইব্রাহিম খান ওরফে মোর্শেদ খান ওরফে মামা (৪৯) কে ঢাকা আশুলিয়ার জহরচান্দা থেকে এবং বাগেরহাট জেলার শরণখোলা থানার দক্ষিন এলাকার মো. আবুল হোসেনের ছেলে মো. আব্দুর রহিম (৩২) কে ঢাকা সাভারের জয়নবাড়ী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এ সময় এস পি আকবর আলী মুনসি বলেন, মুলত আসামীগনদের নিদিষ্ট কোন স্থায়ী ঠিকানা নেই। তারা প্রথমে কোন একটি এলাকাকে টার্গেট করে ভুয়া নাম ঠিকানা দিয়ে নির্জন এলাকায় ছদ্মবেশে বাড়ী ভাড়া নিয়ে সেই এলাকার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বড় বড় ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে। পরবর্তীতে নির্দিষ্ট দিনে অপেক্ষাকৃত দুর্বল এবং বয়স্ক টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তিদের টার্গেট করে তার পিছু নেয় এবং নির্জন স্থানে পৌঁছামাত্র তাদের আক্রমন করে উপর্যুপরি গুলি চালিয়ে টাকা ছিনতাই করে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, ডাকাত মাসুদ রানা উক্ত গ্রেফতারকৃত আসামীদের আশ্রয়, মোটরসাইকেল, অস্ত্র এবং নিরাপত্তা প্রদান করে থাকে। আসামীগন বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, দস্যুতা, খুন, মাদক ব্যবসা করে থাকে। তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক গ্রেফতারী পরোয়ানা মুলতবী রয়েছে। এই চক্রের আরো দুইজন সদস্য পলাতক রয়েছে। তাদেরকে গ্রেফতারের অভিযান অব্যহত রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Copyright 2020 © All Right Reserved By DDP News24.Com

Developed By Sam IT BD

themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!