মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১১:০৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
পুলিশ কোভিড অক্সিজেন ব্যাংক গঠন রাজশাহীতে বড়াইগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় ঈশ্বরদীর পিকআপ চালক নিহত, হেলপার আহত কোন এলাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বাড়লে স্থানীয়ভাবে লকডাউন দিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী মাচ চুরির অভিযোগে খোকসায় যুবককে পিটিয়ে হত্যা রাজশাহীতে করোনায় আরো ১২ জনের মৃত্যু পাবনা জেলা পুলিশের অসাধারণ কৃতিত্ব, রাজশাহী রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পাবনা, পাবনা জেলার শ্রেষ্ঠ ঈশ্বরদী জনপ্রিয় চিত্র নায়িকা পরিমনিকে হত্যা ও ধর্ষন চেষ্টা মামলায় ব্যাবসায়ী নাসীর উদ্দীনসহ ৫ আসামী গ্রেফতার ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন সহ ছয়জনের বিরুদ্ধে পরিমনির মামলা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুষ্টিয়ার ট্রিপল হত্যাকাণ্ডে তোলপাড় রাজশাহীতে করোনায় আরো ১২ জনের মৃত্যু

স্বাড়ম্বরে পালিত হচ্ছে প্রথম জাতীয় চা দিবস

ডিডিপি নিউজ ২৪ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৪ জুন, ২০২১

ঢাকা অফিস।।

 

আজ শুক্রবার (৪ জুন) দেশে প্রথমবারের মতো জাতীয় চা দিবস পালিত হচ্ছে। এবারের চা দিবসের প্রতিপাদ্য হলো ‘মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, চা-শিল্পের প্রসার’।

বাংলাদেশ চা বোর্ড জানায়, ১৯৫৭ সালের ৪ জুন প্রথম বাঙালি হিসেবে তৎকালীন চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। চা বোর্ডের চেয়ারম্যান থাকাকালে এবং স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে চা শিল্পে বঙ্গবন্ধুর অবদানকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রতিবছর ৪ জুন চা দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়েছিল গত বছর। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দেশে প্রথমবারের মতো দিবসটি উদযাপন করা হচ্ছে।

দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সকালে ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও চা প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। ঢাকার পাশাপাশি চা উৎপাদনকারী অঞ্চল চট্টগ্রাম, সিলেট ও পঞ্চগড়ে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী পৃথক বাণী দিয়েছেন।

‘জাতীয় চা দিবস’ ২০২১ উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘সুদীর্ঘ ১৮০ বছর ধরে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে চা শিল্প গভীরভাবে জড়িয়ে আছে। দেশের সাধারণ মানুষের সামাজিকতা, সংস্কৃতি ও দৈনন্দিন জীবনের সাথে চা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত।

প্রেসিডেন্ট স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষে প্রথমবারের মতো ‘জাতীয় চা দিবস-২০২১’ উদযাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং এ উপলক্ষে তিনি চা শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

প্রেসিডেন্ট বলেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন চা বোর্ডের প্রথম বাঙালি চেয়ারম্যান। তিনি ৪ জুন ১৯৫৭ থেকে ২৩ অক্টোবর ১৯৫৮ পর্যন্ত চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালনকালে চা শিল্পের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। পরবর্তীতে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত চা শিল্পের পুনর্বাসনে তিনি অসামান্য অবদান রাখেন। এ প্রেক্ষাপটে ৪ জুন ‘জাতীয় চা দিবস’ পালনের উদ্যোগ বিশেষ তাৎপর্য বহন করে।”

রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করার লক্ষ্যমাত্রার সাথে সংগতি রেখে দেশের অর্থনীতিকে বেগবান করা, রফতানি বাজার স¤প্রসারণ, চা বাগানে ভূমির সর্বোত্তম ব্যবহার, দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং পিছিয়ে পড়া চা শ্রমিকদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ চা বোর্ডসহ চা শিল্পসংশ্লিষ্ট সকলে নিরলস প্রচেষ্টা চালাবে– এ প্রত্যাশা করেন প্রেসিডেন্ট। তিনি ‘জাতীয় চা দিবস-২০২১’ উপলক্ষে নেওয়া সব কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।

অন্যদিকে, ‘জাতীয় চা দিবস’ উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চা শিল্পের প্রসার তথা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আনয়নে চা শ্রমিক, চা গবেষক, চা উৎপাদনকারী, চা ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সবাই একসাথে আন্তরিকভাবে কাজ করবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আমি প্রত্যাশা করি, চা শিল্পের প্রসার তথা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আনয়নে চা শ্রমিক, চা গবেষক, চা উৎপাদনকারী, চা ব্যবসায়ীসহ সকলে একসাথে আন্তরিকভাবে কাজ করবে।’

চা রফতানির পুরাতন ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে সরকার এর উৎপাদনের পাশাপাশি বিপণনের ওপরও গুরুত্বারোপ করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এতে ২০২০ সালে ১৯টি দেশে চা রফতানি করে প্রায় ৩৫ কোটি টাকা আয় করা সম্ভব হয়েছে। এবং আমরা চা আইন ২০১৬ প্রণয়ন করেছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘চা গাছের নতুন নতুন ক্লোন উদ্ভাবন, উৎপাদন ব্যয় কমানোর জন্য গবেষণার মাধ্যমে আধুনিক ও কার্যকরী চা চাষ প্রক্রিয়া উদ্ভাবন, গবেষণাগার আধুনিকায়ন ও চা বিজ্ঞানীদের গবেষণায় উৎসাহ প্রদান, আন্তর্জাতিক বাজারের চাহিদানুযায়ী গুণগত মানসম্পন্ন ও বৈচিত্রময় চা তৈরি, চায়ের বহুমুখী ব্যবহার, আকর্ষণীয় ও আন্তর্জাতিক মানের মোড়কে বাজারজাতকরণ এবং সর্বোপরি নতুন নতুন বাজার অন্বেষণে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৭ সালের ৪ জুন প্রথম বাঙালি হিসেবে চা বোর্ডের চেয়ারম্যান পদে যোগদান করে বাঙালি জাতিকে সম্মানিত করেন। তিনি চা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে দেশের চা শিল্পে অসামান্য অবদান রাখেন। তাঁর প্রত্যক্ষ দিকনির্দেশনায় ১৯৫৭ সালে শ্রীমঙ্গলে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং ঢাকার মতিঝিলে চা বোর্ডের কার্যালয় স্থাপিত হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে চা শিল্পে তাঁর অবদান এবং চা বোর্ডে যোগদানের তারিখকে স্মরণীয় করে রাখতে ৪ জুনকে জাতীয় চা দিবস ঘোষণা করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী ‘জাতীয় চা দিবসে’র সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

উল্লেখ্য, চা বাংলাদেশের অন্যতম রফতানি পণ্য। চা বোর্ডের হিসাবে, ২০২০ সালে দেশের বাগানগুলোতে ৮ কোটি ৬৪ লাখ কেজি চা উৎপাদন হয়। এর আগের বছর ২০১৯ সালে দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯ কোটি ৬০ লাখ কেজি চা উৎপাদন হয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Copyright 2020 © All Right Reserved By DDP News24.Com

Developed By Sam IT BD

themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!