মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
ঈশ্বরদীতে সাপের কামড়ে খামার শ্রমিকের মৃত্যু নাটোরের ওয়ালিয়ায় বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত দাশুড়িয়ায় বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সারাদেশের ন্যায় ঈশ্বরদীতেও বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত নাটোরের জোকাদহে ডিডিপির বাউল গানের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত পাবনা ডিবি পুলিশের সফল অভিযান বিপুল পরিমাণ অস্ত্রসহ হত্যা মামলার আসামি গ্রেপ্তার ঈশ্বরদী নতুনহাট গোলচত্বরে ট্রাকচাপায় অটোরিকশার ৫ যাত্রী আহত Hello world ধর্ষণের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করা ছেলেটি নিজেই ধর্ষক অবশেষে শ্রীঘরে ধর্ষণের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করা ছেলেটির নিজেই ধর্ষক অবশেষে শ্রীঘরে

আদালত নয়, প্রেস কাউন্সিলে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলার বিধান কার্যকরী করার দাবী

ডিডিপি নিউজ ২৪ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

ঢাকা অফিস।।

আজ ৭ই অক্টোবর বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের হলরুমে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মহোদয়ের সাথে বাংলাদেশ ফেডারেশন অব জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (বিএফজেও) এবং জাতীয় সাংবাদিক সোসাইটির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের “বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের ট্রাইবুনালের ক্ষমতা ও কার্যপরিধি বৃদ্ধিকরণ” সংক্রান্ত বিষয়ে এক আলোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রেস কাউন্সিলের মাননীয় চেয়ারম্যান বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের কল্যাণ ও উন্নয়নে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের ভূমিকা ও অবদানের কথা বিশদভাবে বর্ণনা করেন এবং খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সাংবাদিক হওয়ার নীতিমালা প্রনয়ন ও প্রকাশ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।
আমরা আমাদের বক্তব্যে মাননীয় চেয়ারম্যান মহোদয়কে জানাই যে, প্রেস কাউন্সিল আইন-১৯৭৪ প্রণীত হওয়ার পর এখন এই আইনের কার্যকারীতা অনেকাংশেই নেই বল্লেই চলে। কেননা, যেসময় এই আইনটি প্রনীত হয়েছিল সেসময় সরকারি টেলিভিশন বিটিভি ছাড়া আর কোন টেলিভিশন ছিল না। কিন্তু এখন ৬০ টিরও বেশি টেলিভিশন বাংলাদেশে রয়েছে। এছাড়াও অন লাইন টেলিভিশন ও পত্রিকাতো রয়েছেই। প্রিন্টিং এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কোন সংবাদ প্রকাশিত হলে ক্ষুব্ধ ব্যক্তি প্রেস কাউন্সিলে বিচার দিলে বিচারের পর অভিযোগ প্রমানিত হলে শুধু ভর্ৎসনা ও তিরস্কার করা ছাড়া আর কোন ক্ষমতাই প্রেস কাউন্সিলের নেই। অপরদিকে প্রিন্টিং ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কোনো সংবাদের কারণে কারো মানহানি ঘটলে সেই পত্রিকা/টেলিভিশনের প্রকাশক, সম্পাদক ও সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে সারা দেশের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে শত শত মামলা দায়ের করাসহ প্রতিটি জেলার দেওয়ানী আদালতে শত শত কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের মামলা দায়ের করার বিধান রয়েছে, যা প্রেস কাউন্সিল আইন এবং ফৌজদারি আইনে সাংঘর্ষিক। একই বিষয়ে একাধিক আদালতে ও ট্রাইবুনালে মামলা দায়ের করাও পুরোপুরি সাংঘর্ষিক বিষয়। স্বাধীন সংবাদপত্রে এধরণের সাংঘর্ষিক বিষয়টি অবসানকল্পে প্রেস কাউন্সিল আইনের ট্রাইবুনালের ক্ষমতা ও পরিধি আরো বৃদ্ধি করাসহ সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিতবা প্রচারিত সংবাদের কারণে মানহানীর মামলা শুধুমাত্র সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলেই দায়ের করার বিধান প্রবর্তন করাসহ ফৌজদারি এবং দেওয়ানী আদালতে সংবাদ প্রকাশে মানহানি ও ক্ষতিপূরণের মামলা করা যাবে না মর্মে আইন সংশোধনের বিষয়ে বিষদ আলোচনা হয়।
সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদের কারণে মানহানীর মামলা দেশের সকল ফৌজদারি ও দেওয়ানী আদালতে দায়েরের অর্থই হচ্ছে সংবাদপত্রের কন্ঠরোধ এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতার সম্পূর্ণ পরিপহ্নী। দু’ঘন্টাব্যাপী আলোচনা ও মতবিনিময় সভাটি ফলপ্রসূ ও আশাপ্রদ হয়েছে বলে আমরা আশাবাদী।
বিএফজেও-এর চেয়ারম্যান এস এম মোরশেদের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত আজকের মতবিনিময় সভাটি সংবাদপত্রের জগতে একটি মাইলফলক বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ
Copyright 2020 © All Right Reserved By DDP News24.Com

Developed By Sam IT BD

themesba-lates1749691102